৬টি ধাপ অনুসরণ করে কম্পিউটারের গতি বাড়ান, new 6th way to improve your computer performance

36
৬টি ধাপ অনুসরণ করে কম্পিউটারের গতি বাড়ান, new 6th way to improve your computer performance

৬টি ধাপ অনুসরণ করে কম্পিউটারের গতি বাড়ান :

অধিকাংশই উইন্ডোজ কম্পিউটার ব্যবহারকারি কম্পিউটারের গতি এই সমস্যাটায় পরেন কিন্তু কিভাবে এটা গতিময় করা যায় তা জানি না। উইন্ডোজের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হচ্ছে এটি সময়ের সাথে ধীরগতির হয়ে যায়। তবে আপনি চাইলে কিছু কৌশল অবলম্বন করে সহজেই উইন্ডোজ পিসির স্পিড বাড়াতে পারেন। চলুন দেখে নিই তেমনই কিছু টিপস।

আপনি যখন আপনার ল্যাপটপটিকে দ্রুত চালিত করতে কিছু আপগ্রেড করতে পারেন, তখন কিছু উন্নতি করতে পারেন যা আপনি আরও সাশ্রয়ী এবং সহজসাধ্য করতে পারেন। এই ছোটখাটো সমস্যগুলি এগুলি আপনার কম্পিউটারের পারফরম্যান্সকে ত্বরান্বিত করবে না বলে মনে হতে পারে, তবে সম্মিলিতভাবে এগুলো পিসিকে বেশ কয়েক বছর ধরে কার্যকর রাখতে সক্ষম করতে পারে।

new 6th way to improve your computer performance:

১। কম্পিউটার রান অপশন্স থেকে temp, %temp%, prefetch এবং recent ফাইল গুলো ডিলিট করে দিন। ডিলিট করার সময় ইউজার পারমিশন চাইতে পারে। কম্পিউটারে কাজ করার সময় অনেক টেম্পরারি ফাইল বা জাংক ফাংশন তৈরি হয় এবং উল্লিখিত ফোল্ডারগুলোতে জমা থাকে। যেগুলা আমাদের কম্পিউটারের কার্যক্ষমতা কমিয়ে দেয়। তাই নিয়মিত এই ফাইলগুলো ডিলিট করে আপনার কম্পিউটারের গতি বাড়াতে পারেন।

২। নতুন করে অপারেটিং সিস্টেম সেটআপ করতে পারেন। লম্বা সময় একই অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করলে অনেক সময় ভাইরাসের কারণে অথবা ক্র্যাসিং ফাইল এর জন্য কম্পিউটারের গতি কমে যেতে পারে। সে ক্ষেত্রে নতুন করে অপারেটিং সিস্টেম সেটআপ দিলে আপনার কম্পিউটারের গতি বৃদ্ধি পেতে পারে।

৩। মাদারবোর্ড এ অনেক সময় ময়লা, ধুলা-বালি জমে। কম্পিউটার এর জন্য এটি খুবই ভয়ানক এবং গতি কমিয়ে দেয় ৫০-৭০% পর্যন্ত! তাই নিয়মিত মাদারবোর্ড পরিষ্কার রাখা উচিত। সিপিউ এর কুলিং ফ্যান, পাওয়ার সাপ্লাই পরিষ্কার নিয়মিত পরিষ্কার করা উচিত। তবে ল্যাপটপ এর মাদার-বোর্ড পরিষ্কার এর সময় সতর্ক থাকা উচিত। ভালো হয় যদি সার্ভিস সেন্টার এ নিয়ে পরিষ্কার করেন।

৪। কম্পিউটার এর র‍্যাম, মাদারবোর্ড এবং বাস স্পিড এর উপর স্পিড নির্ভর করে অনেকাংশে। সুতরাং আপনি চাইলে র‍্যাম এবং প্রসেসর আপডেট করে স্পিড বাড়াতে পারেন। তবে এক্ষেত্রে শুধু র‍্যাম বা শুধু প্রসেসর পরিবর্তন করা উচিত নয়। এতে করে মাদারবোর্ড এর সমস্যা হতে পারে। র‍্যাম বা প্রসেসর আপডেট এর সময়, মাদারবোর্ড এর সাথে কম্বিনেট করে সে দিকেও লক্ষ্য রাখতে হবে।

৫। অনেক সময় সফটওয়্যার এবং হার্ডওয়্যার এর কম্বিনেশন ঠিক না থাকায় পিসি স্লো হয়ে যায়। যেমন, এন্ড্রয়েড স্টুডিও ওপেন করলে ৪জিবি র‍্যাম এর কম্পিউটারে আপনি অন্য কোন কাজ করতে পারবেন না। আবার র‍্যাম যদি এর থেকেও কম হয় তাহলে ভার্চুয়াল ইমুলেটর চালাতে পারবেন না। এ ক্ষেত্রে কনফিগারেশন এর সাথে সফটওয়্যার এর কম্বিনেশন ব্যালেন্স করে কম্পিউটার স্পিড বাড়াতে পারেন।

৬। অনেক সময় সফটওয়্যার আপডেট না করার কারণে কম্পিউটার এর স্পিড কমে যেতে পারে। যেমন আগে হয়ত কোন ওয়েব সাইট শুধু টেবিল দিয়ে ডিজাইন করা ছিল যেটা এখন জাভাস্ক্রিপ্ট এ আপডেট করা হয়েছে। এখন আপনার ব্রাউজার যদি পুরাতন হয় তাহলে এই ওয়েব সাইট লোড হতে সময় লাগবে। একই ভাবে অন্য সফটওয়্যার গুলো কম্পিউটার এর স্পিড কমাতে/বাড়াতে ভূমিকা রাখে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here